ঢাকা, মঙ্গলবার, ৯ মার্চ ২০২১

শিরোনাম : বহুল আলোচিত কুষ্টিয়া হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে দুদকের মামলা সরাইল উপজেলা বিএনপির নবগঠিত কমিটির পরিচিতি সভা ময়মনসিংহে আন্তর্জাতিক নারী দিবসে সাইকেল র‌্যালী অনুষ্ঠিত সিরতা নয়াপাড়ায় মসজিদ ও মাদরাসাকে কেন্দ্র করে মারামারিতে আহত ০৭ বগুড়া সান্তাহার পৌরবাসী মশার যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মামুনুর রহমান'র সাথে ছাতক অনলাইন প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দের মতবিনিময় শহীদ তালেব প্রিমিয়ারলীগ ফাইনালে দিরাইয়ে আসছেন মোহাম্মদ আশরাফুল স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন কমিটি গঠন করেছে জগন্নাথপুর উপজেলা বিএনপি নওগাঁয় বিশ্ব নারী দিবস পালিত মদনে ৮ই মার্চ আন্তজাতিক নারী দিবস পালিত

কুষ্টিয়ার মিরপুর পৌর নির্বাচনে একটি কেন্দ্রে প্রবাসী ও মৃত মানুষের ভোট দেওয়াসহ শতভাগ ভোট পোল

কে এম শাহীন রেজা, কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধি:

২০২১-০১-২১ ২২:৫৭:২৮ /

কুষ্টিয়ার মিরপুর পৌরসভার নওপাড়া এলাকার বাসিন্দা আতর আলী শেখ (৬২) বার্ধক্যের কারণে গত ৬ আগস্ট মারা যান। একই এলাকার রাবেয়া খাতুন (৭৮) গত ১০ জুলাই এবং নুর ইসলাম প্রামাণিক (৫০) গত ২১ ডিসেম্বর মারা যান। এ ছাড়া স্থানীয় লোকজন আরও কয়েকজনের মৃত্যুর খবর জানিয়েছেন। বেশ কয়েকজন কর্মসূত্রে বিদেশে এবং বিভিন্ন জেলায় অবস্থান করছেন। এ রকম অন্তত ২৫ জন রয়েছেন বলে মুখে মুখে হিসাব করে জানালেন স্থানীয় লোকজন। তবে নওপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের ভোটের হিসাব বলছে মৃত এবং বিদেশে অবস্থানরত ব্যক্তিরাও ১৬ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত মিরপুর পৌরসভা নির্বাচনে ভোট দিতে এসেছিলেন! কারণ, ওই কেন্দ্রে সেদিন শতভাগ ভোট পড়েছিল। নির্বাচন কমিশনের দায়িত্বরত রিটার্নিং কর্মকর্তা কেন্দ্রভিত্তিক যে ফলাফল প্রকাশ করেছেন, তাতেই এ রকম অস্বাভাবিক চিত্র উঠে এসেছে। গতকাল বুধবার দুপুরে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে কুষ্টিয়া, মিরপুর, ভেড়ামারা ও কুমারখালী নির্বাচনে মেয়র পদে কেন্দ্রভিত্তিক ফলাফলের এসব উপাত্ত সংগ্রহ করা হয়। জেলা নির্বাচন কার্যালয় থেকে পাওয়া তথ্যে মিরপুর পৌরসভা নির্বাচনের কেন্দ্রভিত্তিক ফলাফল বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, ১৬ জানুয়ারি ব্যালটে অনুষ্ঠিত মিরপুর পৌরসভা নির্বাচনে মোট ১০টি কেন্দ্রে গড়ে ভোট পড়েছিল ৮৪ দশমিক ৯৬ শতাংশ। এর মধ্যে ৭টিতে ৮০ শতাংশের ওপরে, দুটি কেন্দ্রে ৭৯ শতাংশের ওপরে এবং নওপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে শতভাগ ভোট পড়েছে। আর জাতীয় নির্বাচন কমিশনের হিসাব বলছে, গত ২৮ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত প্রথম ধাপের ২৪টি পৌরসভার নির্বাচনে ভোট পড়েছে ৬৫ শতাংশ। ১৬ জানুয়ারি দ্বিতীয় ধাপের ৬০টি পৌরসভার নির্বাচনে ভোট পড়ার হার ছিল ৬১ দশমিক ৯২ শতাংশ। সেই অনুপাতে মিরপুর পৌরসভায় অস্বাভাবিক হারে ভোট পড়েছে। জানা গেছে, মিরপুরের নওপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের মোট ভোটার ১ হাজার ৪১৫ জন। সেখানে আওয়ামী লীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ১ হাজার ২৪ ভোট। বিএনপি মনোনীত প্রার্থী রহমত আলী ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ১৭৬ ভোট। আর স্বতন্ত্র প্রার্থী আরিফুর রহমান মোবাইল প্রতীকে পেয়েছেন ১৭১ ভোট। বাতিল হয়েছে ৪৪টি। মিরপুর পৌরসভা নির্বাচনে এই কেন্দ্রে শতভাগ ভোট পড়ার বিষয়ে জেলাজুড়ে এখন নানামুখী আলোচনা চলছে। মিরপুর পৌরসভা নির্বাচনের প্রচারণার সময় আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী (বিজয়ী) এনামুল হক দুটি পথসভায় বক্তব্যে প্রকাশ্যে নৌকায় ভোট দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছিলেন। সেই বক্তব্যের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে ভাইরাল হয়েছিল। প্রার্থীর ওই বক্তব্যের প্রভাবেই এ রকম ভোট পড়েছে কি না, তা নিয়েও জল্পনা রয়েছে। আর মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী বিএনপির মনোনীত ও স্বতন্ত্র প্রার্থী এমন অস্বাভাবিক ভোট পড়ায় নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ করেছেন। তাঁদের অভিযোগ, রিটার্নিং কর্মকর্তার যোগশাজশে নৌকা প্রতীককে জেতাতে এমন অস্বাভাবিক ঘটনা ঘটানো হয়েছে। গত সোমবার কুষ্টিয়া শহরে একটি রেস্তোরাঁয় সংবাদ সম্মেলন করে বিএনপির প্রার্থী রহমত আলী ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আরিফুর রহমান এমন অভিযোগ করেন। অবিলম্বে এ নির্বাচন বাতিল করে আবার ভোট গ্রহণের দাবি জানান তাঁরা। শতভাগ ভোট পড়ার এ অসাধ্য কী করে সাধন করলেন জানতে চাইলে ওই কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা প্রিসাইডিং কর্মকর্তা (স্কুলশিক্ষক) আবু বকর সিদ্দিক গতকাল বুধবার দুপুরে , ‘যাঁরা বুথে ভোট গ্রহণ করেছেন, তাঁরাই বলতে পারবেন কীভাবে ভোটাররা ভোট দিয়েছেন। যেহেতু শতভাগ ভোট পড়েছে, তাই এটা স্বাভাবিক বিষয়। কারণ, ভোটের দিন কেন্দ্রে সুষ্ঠুভাবেই ভোট গ্রহণ হয়েছে। কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।’ মিরপুর পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী এনামুল হক মোট ভোট পেয়েছেন ১০ হাজার ৪২০। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী আরিফুর রহমান পেয়েছেন ২ হাজার ৫৪৭ ভোট। বিএনপি মনোনীত প্রার্থী রহমত আলী পেয়েছেন ১ হাজার ৭৩৬ ভোট। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে কুষ্টিয়া নাগরিক কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সেলিম তোহা বলেন, ‘এটা অবাক করা বিষয় মনে হচ্ছে। কেননা, অনেক ভোটার মারা যেতে পারেন। সেই ভোটগুলো কীভাবে পড়ল, সেটা ভাবার বিষয়। বিষয়টি নির্বাচন কমিশনের খতিয়ে দেখা উচিত।

এ জাতীয় আরো খবর

নৌকার মাঝি হতে চান আমজাদ আলী

নৌকার মাঝি হতে চান আমজাদ আলী

ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর নির্বাচনী অফিসে ককটেল বিস্ফোরণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর নির্বাচনী অফিসে ককটেল বিস্ফোরণ

রাণীশংকৈলে নৌকা বিজয়ী

রাণীশংকৈলে নৌকা বিজয়ী

ভোট জালিয়াতি ও কেন্দ্র দখলের প্রতিবাদে ঠাকুরগাঁওয়ে বিএনপির ফলাফল বর্জন

ভোট জালিয়াতি ও কেন্দ্র দখলের প্রতিবাদে ঠাকুরগাঁওয়ে বিএনপির ফলাফল বর্জন

সুনামগঞ্জের শিমুলবাক ইউপি নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী মঈন উদ্দিনের সমর্থনে মতবিনিময় সভা

সুনামগঞ্জের শিমুলবাক ইউপি নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী মঈন উদ্দিনের সমর্থনে মতবিনিময় সভা

কলমাকান্দা ব্যবসায়ী মালিক  সমিতির নির্বাচনের প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ

কলমাকান্দা ব্যবসায়ী মালিক সমিতির নির্বাচনের প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ